উদ্যোক্তাদের অহরহ করা কিছু ভুল এবং কিছু সমাধান

নতুন ব্যবসায় চালু করেছে, এমন কাউকে জিজ্ঞেস করলে বুঝতে পারবেন কী যে কষ্ট। প্রথমে আপনাকে টেকসই পন্য বা সেবা তৈরি করতে হবে এবং এমন মার্কেট খুজে বের করতে হবে যাতে কাস্টমাররা কিনতে চায়। তার পরবর্তী পদক্ষেপ হলো ব্যবসায় মাপা/বিশ্লেষন করা এবং ভবিষ্যত নিয়ে কঠিন কঠিন সিদ্ধান্তের মুখোমুখি হওয়া।

বহু উদ্যোক্তা যখন ব্যবসায় শুরু করে, তাদের কোন রোডম্যাপ থাকে না এবং কম পরিকল্পনা করে ব্যবসায় শুরু করে। এতে মুনাফার মুখ দেখতে বহু সময় লেগে যায় । ভুলগুলো খুবই স্বাভাবিক; অনেক সময় অনিবার্য। এই ভুলগুলোই আবার আপনাকে বানাতে পারে আরও সচেতন ও বিজ্ঞ। অনেক ভুল সিদ্ধান্ত খুব তারাতারি সমাধান করা যায় আবার কিছু আছে যা বেশি সময় নিতে পারে। তবে আমার দাদি প্রায়ই বলতেন,

“কিনা বুদ্ধি হলো সবচেয়ে ভালো বুদ্ধি এবং তুমি এর জন্য মন থেকে ইচ্ছা করে খরচ করনি”

নিচের টিপসগুলো ছয়টি প্রচলিত ভুল শুধরানোর জন্য সহযোগিতা করবে।

১. উদ্যমহীন বিশ্লেষন থেকে বিরত থাকুন: বিশ্বস্ত কোন মেন্টর এর কাছ থেকে উপদেশ নিতে ভয় করবেন না। নতুন ব্যবসায়ে ফিডব্যাক অবিশ্বাস্যরকম গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে আপনারই পন্য বা সেবা সম্পর্কিত ব্যবাসায়ের সফল মালিক এর কাছ থেকে আসবে। কিন্তু সজাগ থাকুন। ভালো উদ্দেশ্যের উপদেষ্টাও আপনাকে দ্বিধায় ফেলে দিতে পারে। অতিরিক্ত উপদেশ আবার আপনার বিশ্লেষনকে প্যারালাইসিস করে দিতে পারে। কোন প্রকার সিদ্ধান্ত নিতে সময় ব্যয় করুন, তবে এমন সময় নয় যা সুযোগ হাতছাড়া করবে এবং আপনাকে সামনে বাড়তে দিবে না। ভুল শুধরাতে পারবেন, তবে সফল হতে পারবেন না যদি শুরু না করেন।

২. ক্রেতাকে জিজ্ঞেস করুন: ফিডব্যাক, বিশেষ করে প্রথম দিকে আপনার পন্য বা সেবা কে ফাইন টিউনিং করার সুযোগ করে দেবে। অনেক সময় হয়তো আপনি ভাবছেন আপনার আইডিয়াটি মহান কিন্তু এটি আপনার মার্কেটের সাথে না ও যেতে পারে। যদি কাস্টমারকে জিজ্ঞেস করেন যে তাদের চাহিদা কী, আপনি নিশ্চিত থাকেন যে তারা ইতিবাচক সাড়া দিবে। অনেকের ক্ষেত্রে, ক্লায়েন্টদের আমন্ত্রন জানায় তাদের প্রস্তাবিত পন্যটি ডিজাইন করার জন্য। এভাবে নিশ্চিন্তে তাদের ইচ্ছা সম্পর্কে জানা যায়। বাজারে ছাড়ার আগে আপনার পণ্যটি ছোট একটি কাস্টমার গ্রুপে পরীক্ষা, যাচাই বাছাই করে নিন।

৩. নেটওয়ার্কিং এর সকল সুবিধা ভোগ করার চেষ্টা করুন: আপনি কতো জনকে জানেন সেটা দেখার বিষয় নয়, আপনাকে কতো জন জানে সেটি বিবেচ্য। সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত আপনার ক্যালেন্ডার কাজের তালিকায় পরিপূর্ন হতে পারে, তবে নেটওয়ার্ক ইভেন্টে ৩০ মিনিট ব্যয় করে বড় ধরনের উপকারিতা পেতে পারেন। দৃশ্যমানতা হলো নেটওয়ার্কিং এর প্রথম নিয়ম। লেখক যখন ব্যবসায় শুরু করেন, বিভিন্ন নাগরিক এবং ব্যবসায় সংগঠনের সাথে যোগ দান করেন। কর্পোরেট কন্টাক্ট এর তালিকা গঠন করা লেখকের দরকার ছিলো। জ্যাকুলিন হোওয়াটইমোর বলেন, প্রথমে এটি অস্বস্তিকর লাগতে পারে, কিন্তু অনেক মানুষের সাথে অকৃপণতার সহিত সাক্ষাত করেছি যা আমার ব্যবসায় এর একটি অংশ ছিলো। আপনার ব্যবসায়টি উন্নত করা জন্য, এটি খুব জরুরি।

৪. বিক্ষেপ থেকে দুরে এবং কেন্দ্রীভুত থাকুন: অন্যন্য উদ্যোক্তার মতো হয়ে থাকলে, আপনার সম্পাদনের চেয়ে বেশি আইডিয়া থাকতে পারে। উজ্জল কোন আইডিয়া পেলে তার ফাদে পরবেন না এবং একে অর্জন করতে গিয়ে আপনার মূল ব্যবসায়কে অবহেলা করবেন না। তার পরিবর্তে আইডিয়াগুলো কোথাও লিখে রাখুন। জ্যাকুলিন হোওয়াটইমোর বলেন,

“আমার সকল স্বল্পমেয়াদী এবং দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যগুলো একটি বোর্ডে লিখে রাখি যেন আমি প্রতিদিন এগুলো দেখতে পারি।”

পর্যায়ক্রমে এগুলো পড়ুন এবং মূল্যায়ন করুন কোনটি আপনি সম্পাদন করতে যাচ্ছেন।

৫. সঠিক ব্যক্তিকে নিয়োগ দিন এবং অনুপযুক্তকে বিদায় দিন: কাকে নিয়োগ দিতে হবে আর কাকে বাদ দিতে হবে এর সিদ্ধান্ত নেয়াটি কঠিন ব্যাপার এবং বিবেচনার জন্য অনেক সময় দরকার। যতক্ষন পর্যন্ত প্রার্থীকে আপনার কাছে উপযুক্ত না মনে হবে এবং বন্ধু-পরিাবার-পরিচিত নিয়োগের ক্ষেত্রে দ্বিতীয় বারের জন্য ভাবুন। কঠিন কাজের পরিস্থিতিতে অনেক গভীর সম্পর্কে ফাটল ধরতে পারে। নিশ্চিত করতে হবে যে, প্রতিটা কর্মী কাজের যোগ্য, শিখতে চায় এবং কাজের প্রতি নৈতিক। কর্মীকে আপনার দুর্বলতার শক্ত পরিপূরক হিসেবে নিয়োগ দিন। যদি আপনার আকাংখা অনুযায়ী কাজ করতে না পারে, তাদেরকে ট্রেনিং দিন অথবা বদল করে ফেলুন।

৬. অবিলম্বে সাড়া দিন এবং কথা রাখুন: অবকাশে না থাকলে ২৪ থেকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে প্রতিটি ভয়েসমেইল এবং ইমেইলের জবাব দেয়া উচিত। এমনকি যদি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অনুরোধ রাখতে না পারেন তবে তাদেরকে জানান যে আপনি কাজটি পারছেন না এবং তাদের বার্তাটি আপনি পড়েছেন। যদি কোন সময়সীমা অতিক্রম করে ফেলেন বা পুনরায় কোন ফোন কল করতে ভুলে যান, ভুল স্বীকার করতে দেরি করবেন না। যখন কোন ক্রেতা, ক্লায়েন্ট বা কর্মীকে কথা দিবেন; তা অবশ্যই রাখার চেষ্টা করবেন। ব্যবসায় উন্নতি এবং সুনাম বৃদ্ধির জন্য যা কিছু করা লাগে সব করুন।

Spread the love

Comments

comments

Leave a Reply