১০ দিনে নতুন ব্যবসায় শুরু করা যায়

কোন একটি প্রতিষ্ঠান তার লক্ষ্যে পৌছাতে পারবে না, যদি শুরু করার সময় গ্রাউন্ডওয়ার্ক কৌশলগতভাবে শক্তিশালী না হয়। কয়েক সপ্তাহের মধ্যে নতুন ব্যবসায় চালু করা এবং মুনাফামুখি করা খুতখুতে ব্যক্তিদের জন্য নয়। এমনকি করার জন্য পরামর্শও দেয়া যায় না। কিন্তু এটা করা সম্ভব। বস্তুত উদ্যোক্তা ব্লগ এ প্রকাশিত একটি পোস্টে জানায় যে, তারা কার্য্যকরি ১০টি দিনের সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করেছে। তারা একে নাম দিয়েছে, ডিআইওয়াই এ্যাক্সেলারেটার টু স্টার্ট এ্য বিজনেস।

প্রথম দিন: বিজন্যাস প্ল্যান আকুন

কলেজ হাঙ্কস হওলিং জাঙ্ক যখন ২০১৪ সালে ব্যবসায় শুরু করে, নিক ফ্রেইডম্যান এবং ওমার সোলাইমান দুই বছরের মতো সময় ব্যয় করেন একটি সুন্দর বিজন্যাস প্ল্যান এর জন্য। ফ্রেইডম্যান বলেন, অবশেষে এটি $৮০,০০০ প্রাথমিক বিনিয়োগে সহায়তা করে।

বিজন্যাস প্ল্যান সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান স্কোর এর সিইও কেন য়েনসি বর্ণনা করেন, ন্যাপকিনে হোক কিংবা ২৫ পেজের ডকুমেন্ট এ বিস্তারিত বর্ণনাসহ প্ল্যানই হোক, দ্রুত মুনাফা পাওয়ার বিজন্যাস প্ল্যান একটু জটিলই।

দ্বিতীয় দিন: মার্কেট রিসার্চ করুন

য়েনসির মতে, স্টার্ট আপের জন্য মার্কেট নিয়ে ঘাটাঘাটি করাটা গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিযোগিতামূলক ল্যান্ডস্কেপে প্রবেশের জন্য ভূচিত্র তৈরি করতে হবে। বাজারে বিদ্যমান পণ্য থেকে কিভাবে পৃথক সুবিধা দিবে, টার্গেট কাস্টমার কারা, অর্থবহ ডেমোগ্রাফিক ড্যাটা, প্রতিযোগী ও সাপ্লায়ার কারা, বিপণন পন্থা কী হবে এবং সরকারী কী কী নিয়মকানুন অনুসরন করতে হবে; এসব বিষয় অনুসন্ধান করতে হবে। ২০১০ সালে ন্যাশনাল স্টোর্ম শেল্টার প্রতিষ্ঠার সময় জেফ টার্নার বাণিজ্য মেলায় গবেষনা চালিয়েছেন এবং সম্ভাব্য ক্রেতাদের সাথে আলোচনা করেছেন।

অন্যদিকে, প্রি-লঞ্চ রিসার্চ যতটা মূল্যবান, ওভার-এ্যানালাইসিস সম্পর্কে সচেতন হওয়াটাও ততটা মূল্যবান। অতি-চিন্তা ও অতি-গবেষনা করতেও নিরুৎসাহিত করা হয়েছে।

তৃতীয় দিন: ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠা করুন

নাম এবং প্রফেশনাল ‍লুকিং লোগো নিয়ে আসতে পারে কৃত্রিমতা বর্জিত ব্র্যান্ড পরিচয়ের ভিন্নতা। এমনকি চালু করার আগেই এটি হতে পারে। লোগো ডিজাইনের জন্য অনলাইনে আবশ্যক টুলসহ অনেক মাধ্যম রয়েছে যেখান থেকে খুব সহজে এ কাজটি করা যাবে। যেমন- দ্রুত ও বিনা খরচে যারা এই সার্ভিসগুলো দেয় তাদের মধ্যে আছে লোগো মেকার, লোগোওয়ার্কস ইত্যাদি। লোগো ডিজাইন করা হয়ে গেলে দ্রুত প্যাড, পেপারহেড, বিজন্যাস কার্ড, পোস্টার ও মেইলার বানিয়ে ফেলুন। তারপর ফেসবুক, টুইটার, পিনটারেস্ট, ইনস্টাগ্রাম এবং লিংকডইন এ জায়গা করে নিতে কিন্তু ভুলবেন না। এখন ব্যবহার না করলেও, শীঘ্রই সোস্যাল মিডিয়াতে চাড়া রুপন করতে হবে।

চতুর্থ দিন: ব্যবসায় নিবন্ধিকরন

স্টার্টআপ ধরন ও ব্যাপ্তি অনুসারে, আইডিয়া-পণ্য-সেবাকে প্রাতিষ্ঠানিক নিবন্ধন বা সমিতিকরন করতে হবে। এ জন্য এ্যাটর্নির উপর দায়িত্ব আরোপ করতে হতে পারে। খুব জটিল কোন বিষয়ে আইনি সহায়তার দরকার পরলে, অনলাইনের বিভিন্ন এ্যাটর্নি টুলস ব্যবহার করতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

পঞ্চম দিন: ব্যবহৃত বা পুরোনো আসবাব বা মেশিন নিয়েই শুরু করুন

প্রাথমিক পর্যায়ে কোন রকম পুরোনো-ব্যবহৃত আসবাব হলেই যথেষ্ট। এ ধাপে, আসল উদ্দেশ্য হলো টাকা বাচানো। ব্যবসায় শুরুর পথে যখন ঘড়ি দৌড়াচ্ছে, ওয়েস্টারমিলার এর সহযোগিতা খুজেছেন। ক্রেইগলিস্ট থেকে দুইজন অবৈতনিক ইন্টার্ন নিয়ে ব্যবসায় শুরু করেন। একজনকে পাঠান বিক্রয়কর্মে আরেকজনকে অপারেশনে। তাদেরকে কথা দেয়া হয়েছিলো যদি সবকিছু ভালো যায়, ৯০ দিন আনপেইড ইন্টার্নশিপ এরপর স্থায়ী নিয়োগ দিবেন।

ওয়েস্টারমিলার এর ইন্টার্নরা কোন কার্য্যালয় ছাড়াই কাজ করতেন। কাজের জন্য ব্যবহার করতেন কফিশপ। একই ভাবে, ফ্রেইডম্যান কলেজ হাঙ্ক হওলিং জাঙ্ক এর জন্য তার অভিভাবকের বাসা ব্যবহার করেছেন।

আরেকটি কথা: উদিয়মান এবং আসন্ন উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারেও সতর্ক থাকতে হবে। ব্যবসায়ের মৌলিক উপাদান না হলে, উন্নত প্রযুক্তির বিপরীতে বিনিয়োগের ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে। কারন, এটি অধিক ব্যয়বহুল হতে পারে যা প্রাথমিক ধাপে বহন করা কঠিন হতে পারে। অথবা কঠিন না হলেও, সমপরিমান অর্থ দিয়ে বেশি প্রতিদান পাওয়া যাবে এমন কিছু করা যাবে।

ষষ্ঠ দিন: বিক্রয় শুরু করুন

মুনাফা অর্জন করা মানেই হলো বিক্রয় শুরু করা। ওয়েস্টারমিলার এবং তার ইন্টার্নরা খুব দ্রুত লিড অতিক্রম করে গেছে। তাদের বিক্রয় প্রচেষ্টা শুরু হয়েছে অক্লান্ত নেটওয়ার্কিং এর মাধ্যমে। ওয়েস্টারমিলার বলেন; “আমার তখন টাকা ছিলো না, তাই চেয়ার থেকে নিতম্ব সরিয়ে নিয়েছি এবং মানুষ সম্প্রদায়ের ভিতর ঢুকে গেছি। এমনকি, যে শহরে ২৫ জনেরও বেশি লোক বাস করতো, সেখানে নাস্তা করেছি দুপুরের খাবার খেয়েছি শুধু সামাজিক কোন অনুষ্ঠানে যোগদানের জন্য।”

গ্রাউন্ডওয়ার্ক এবং মার্কেটিং ভালো করতে ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ককে কাজে লাগাতে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

সপ্তম দিন: মিডিয়া কাজে লাগান

সাড়া জাগাতে এবং বিক্রি বাড়াতে মিডিয়া সম্পর্ককে গুরুত্ব দিন। টার্নার এবং ফ্রেইডম্যান আবিষ্কার করলেন যে, প্রচারের জন্য ব্যবসায়ের মালিককে দ্রুত পরিশোধ করতে হয় এবং ভালো লভ্যাংশও আসে। “আমি বিভিন্ন টিভি চ্যানেলকে কল করলাম এবং আমাদের নতুন কোম্পানির পরিচিতি দিলাম এবং পাচটার সংবাদ পর্যন্ত চালালাম। এটাই আমাদের জন্য অনেক ছিলো”- ফ্রেইডম্যান বলেন।

ঠিক একই ভাবে কলেজ হাঙ্কস শুরুর সময় উন্নত প্রচারনা পেয়েছিলেন, শুধুমাত্র ওয়াশিংটন পোস্টে একটি আর্টিকেল পোস্ট করে।

অষ্টম দিন: সফল হতে কৌশলি হোন

সফলতা হলো স্ব-পরিপূরক বিষয়। যত ভালো শুরুই করেন, যত রেকর্ডই করেন, আবার যত ব্যর্থই হোন; বড় চিন্তা করুন এবং এমনভাবে আচরন করুন যেন আপনি সবার মাঝে যুক্ত আছেন। “আমরা ভেঙ্গে পরেছিলাম, কিন্তু আমরা হেটেছি, কথা বলেছি এবং এমন আচরন করেছি যেন আমরা অনেক বড় কোম্পানি” – ফ্রেইডম্যান বলেন।

ফিশ অন্য কর্মপ্রণালী প্রয়োগ করেন। তিনি বলেন যে, ব্যবসায় শুরুর মুহূর্তে রিসিপশনিস্ট এর উপর বিনিয়োগ করেন যেন প্রাথমিক ধাপ থেকেই তাদেরকে পেশাদার মনে হয়।

নবম দিন: কাজে ঢুকে পড়ুন এবং করতে থাকুন

স্টার্ট আপ উদ্যোক্তাদের জন্য, মুনাফা অর্জন করার দ্রুত রাস্তা হলো কাজে লেগে পরা এবং করতে থাকা। নতুন ব্যবসায় এর সবকিছু একত্র করা এবং নতুন ক্রেতাদেরকে শ্রেষ্ঠ সেবা দেয়ার মাঝে একটি লড়াই তৈরি হয়ে যায়। “আমরা সকাল ৫টা সময় কাজে লেগে যেতাম এবং আসবাবগুলো সাজিয়ে গুছিয়ে রাখতাম। এতে ক্রেতা ভিড় সামলানোর জন্য সুবিধা হতো” –ফ্রেইডম্যান বলেন।

যখন দিন দিন কাজের চাপ বাড়তে থাকবে-একটি ভালো লক্ষন-কারন এর মানে হলো আপনার ক্রেতা আছে। নতুন নতুন কৌশল আবিষ্কার ও প্রয়োগ করার এটাই সময়। নিয়োগ এবং বিপণন এর প্রয়োজন হতে পারে। এক্ষেত্রেও সিদ্ধান্ত নিতে হবে বুঝেশুনে।

দশম দিন: মিলাদ/পার্টি দিন

ব্যবসায় সেট করার পরই কন্টাক্ট লিস্টে থাকা বন্ধু, বিক্রেতা, পরিবারের লোকজন এবং সবাইকে দাওয়াত দিন এবং গ্র্যান্ড-অপেনিং সেলিব্রেশন উৎযাপন করুন। এর ফলে জন সম্প্রদায়ে ভালো গুঞ্জন শুরু হবে এবং সুনাম ছড়িয়ে পরবে। এর দ্বারা আপনার ইমেইজ ঘনীভুত হবে যে আপনি ব্যবসার জন্য উদার মনের এবং আপনি এটাই করবেন। মিলাদ/পার্টিতে, দীর্ঘশ্বাস নিন এবং যারা সহযোগিতা করেছে ধন্যবাদ জানিয়ে ছোট বক্তৃতা দিন। অল্প করে, তাদের কাছ থেকে পরামর্শ ও ফিডব্যাক নিন।

Spread the love

Comments

comments

Leave a Reply