৯টি কারনে নিজের ব্যবসা শুরু করা উচিত

আপনি উদ্যোক্তা হয়ে থাকলে, আমি নিশ্চিত, ব্যবসা না করার মিলিয়ন মিলিয়ন পরামর্শ পেয়েছেন। এটা অনেক ঝুকিপূর্ণ, তুমি ঋণগ্রস্থ হতে পারো, ঘুম হাড়াতে পারো, সামাজিক জীবন নষ্ট হতে পারে এবং এরকম বহু সমস্যা। কিন্তু সকল অনিশ্চয়তা সত্ত্বেও, মানুষ নতুন ব্যবসায় আকৃষ্ট। কোন বাধা না থাকলে, নিজের জন্যই ব্যবসায় শুরু করা উচিত। অনেক প্রবন্ধে ভুরি ভুরি কারন ব্যাখ্যা আছে। আমি তাদের থেকে নয়টা কারন বাছাই করেছি। স্টার্ট আপের জন্য এগুলোই যথেষ্ট:

১. অতিরিক্ত সময়: আমাদের হাতে কিছু সময় থাকে যা অলসভাবে কাটে। এই সময় কাজে লাগানোর মাধ্যম হলো নিজে মুনাফা অর্জনে কিছু করা। এক্ষেত্রে ব্যবসায়ই উপযুক্ত।  ভালো করতে কিছু সময় নিতে পারে। প্রথমে বেশি সময় ধরে কাজ করে, অল্প মায়না পেতে পারেন। কিন্তু যখন আপনি পরিপূর্ণভাবে কাজটা করতে পারবেন, আপনার মূল্য অনেকগুন বেড়ে যাবে এবং উদ্যোক্তার মজা বুঝতে পারবেন।

২. বলার মতো গল্প: যখনই কাউকে বলবেন আমি নিজের ব্যবসায় পরিচালনা করি, তখন জানতে আগ্রহী হবে, কী করেন, কিভাবে করেন। এটা অনেকটা আনন্দদায়কের মতো কাজ করে।

৩. গৌরব: যখন কোন কিছু সফলভাবে সম্পন্ন করা যায়, তার অনুভুতিটা অনেক মহৎ হয়। নিজের একটা ভিশন থাকবে, এবং সম্পাদন করবে।

৪. বংশধর: আমি একজন ডক্টর, আইনজীবী কিংবা বাসচালক; এটা চিন্তা করতে কঠিন হবে যে আমার পেশাটা পরবর্তী বংশধরকে দিয়ে যেতে পারবো। কিন্তু একটি ব্যবসায়ের মালিক হলে, পরবর্তী বংশধরকে দিয়ে যাওয়ার মতো কিছু থাকবে।

৫. কাজের নিরাপত্তা: কখনও চাকুরিচ্যুত, ছাটাই বা বরখাস্ত হয়েছেন? যদি হ্যা হয়, তবে আপনি বুঝতে পারবেন। উদ্যোক্তার ক্ষেত্রে কিন্তু নিজেই নিজের বস।

৬. অর্থনৈতিক স্বাধীনতা: এটাই মনে হয় সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য কারন, যার জন্য মানুষ নিজের ব্যবসায় করে। এবং এটাই উচিত। অবশ্যই অর্থনৈতিক স্বাধীনতা চাবেন। অর্থনৈতিক স্বাধীনতার সংজ্ঞা দিতে গেলে বলতে হবে- কোন অবসর (রিটায়ারমেন্ট) নাই, অসীম অর্থের সন্ধান অথবা আপনি যা কিনতে চান তার পর্যাপ্ত অর্থ থাকা। বিশ্বাস করুন, টাকা সুখ কিনতে পারে না। কিন্তু এটা সুখ খুজে পেতে সহযোগিতা করে।

৭. কর্মসংস্থান: এর চেয়ে বেশি আত্নতৃপ্তি কোথাও পাবেন না, যখন আপনি জানবেন অধিনস্থ কর্মচারী/কর্মকর্তার সফলতার কারন আপনি। আপনার চিন্তা/ধারনা তাদের জীবিকা নির্বাহ করতে সহায়তা করছে, তাদের পরিবার স্বপ্নপূরন করছে।

৮. আপনার ব্র্যান্ড: অন্যকিছুর মাধ্যমে নিজেকে জানতে পারার আনন্দ অপরিসীম। মানুষ আপনাকে সম্বোধন বা পরিচয় করিয়ে দিবে একজন মার্কেটার, খুচরা বিক্রেতা, সফ্টওয়্যারগুরু বা সিইও হিসেবে ।

৯. আপনার ব্যক্তিগত কারন: আমি কিছু তালিকা দিলাম যে কারনে আমি মনে করি আপনার নিজের ব্যবসায় করা উচিত। কিন্তু সবচেয়ে বড় বিষয় হলো আপনি কী কারনে ব্যবসায় করবেন, আরও ব্যক্তিগত কারনও থাকতে পারে।

Spread the love

Comments

comments

Leave a Reply